September 23, 2018

আবারও শাস্তি পেতে যাচ্ছেন তামিম ইকবাল!

স্পোর্টস ডেস্কঃ  ঘটনাটা চাপাই পড়ে যেত! যদি সংবাদকর্মী, ফটো সাংবাদিকরা গত ১২ জুন বিকেএসপির তিন নম্বর ভেন্যুতে ম্যাচ কাভারে না যেতেন। প্রাইম দোলেশ্বরের বিপক্ষে সুপার লিগের গুরুত্বপূর্ণ ওই ম্যাচে স্ট্যাম্পিংয়ের একটি আবেদন নাকচ করলে আম্পায়ারদের সঙ্গে বাজে আচরণ করেন আবাহনীর অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

এ ঘটনার পরে দুই ফিল্ড আম্পায়ার ম্যাচ রেফারির সঙ্গে কথা বলে ম্যাচ পরিচালনায় অস্বীকৃতি জানিয়ে মাঠ ছাড়েন।

বৃষ্টির কারণে ৪৫ ওভারে নামিয়ে আনা ম্যাচে আবাহনীর দেয়া ১৯২ রানের টার্গেটে দোলেশ্বর ১৭ ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে ৫৯ রান তোলার পর স্থগিত হয় ম্যাচটি। ক্যামেরার ফুটেজকে আমলে না নিয়ে পরদিন এ ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন স্বয়ং লিগের আয়োজক-সিসিডিএমের সমন্বয়ক আমিন খান।

তামিম-কাণ্ডের একদিন পর আমিন খান সংবাদমাধ্যমকে যা জানান তার অর্থ দাঁড়ায়-কোনো গণ্ডগোল হয়নি আবাহনী-দোলেশ্বর ম্যাচে। খেলা হয়নি আম্পায়ারদের অসুস্থতায়! ম্যাচ রেফারির রিপোর্টে আম্পায়ারদের অসুস্থতা ছাড়া অন্য কোনো কারণ হিসেবে কিছুই উল্ল্যেখ নেই।

অথচ ওই ম্যাচে মাঠে ঘটে যাওয়া অপ্রীতিকর ঘটনা নিয়ে তৈরি করা ম্যাচ রিপোর্ট মঙ্গলবার (২১ জুন) বিসিবিতে জমা দিয়েছেন ম্যাচ রেফারি মন্টু দত্ত। বিশ্বস্ত একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, আম্পায়ারদের সঙ্গে তামিম ইকবালের বাজে আচরণ, গালিগালাজ অর্থাৎ ওইদিন মাঠে যা ঘটেছে সব কথাই এসেছে ম্যাচ রেফারির রিপোর্টে। তাই এবার শাস্তির মুখে পড়তে যাচ্ছেন আবাহনী অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

২০১২-১৩ মৌসুমে খেলার মাঝে প্রতিপক্ষ দলের ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুলের ওপর চড়াও হয়ে এক ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ আর পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হয়েছিল তামিমকে।

এবারের ঘটনার জন্য তামিমের কি শাস্তি হয় সেটি জানা যাবে বুধবার বিকেলে। এদিন দুপুর ২টার মধ্যে বিসিবির কাছে রিপোর্ট জমা দেবে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি। এরপর বাকি সিদ্ধান্ত নেবে বোর্ড। সূত্র মতে, ম্যাচ পরিচালনা না করায় শাস্তি হতে পারে আম্পায়ারদেরও। রিপোর্টে বিভ্রান্তি থাকা ও সবধরনের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা থাকার পরও সিদ্ধান্ত নিতে অপারগতার কারণে শাস্তি হতে পারে ম্যাচ রেফারিরও।

প্রিমিয়ার লিগের শুরু থেকেই বিতর্ক সঙ্গী হয়ে আছে। শেষে এসে সেই বিতর্কগুলো জট পাকাচ্ছে। ম্যাচটির ভাগ্য নিয়ে আভাস পাওয়া গেছে, যেখানে শেষ হয়েছে ওখান থেকে ম্যাচটি শুরু না হয়ে নতুন করে ম্যাচ মাঠে গড়ানোর তারিখ ঠিক হতে পারে কাল! এমনটা হলে আরও বড় বিতর্ক সৃষ্টি হবে ঘরোয়া ক্রিকেটের সর্বোচ্চ এ আসরটিতে।

Related posts