September 20, 2018

আবারও আতঙ্কে বিএনপির নেতাকর্মীরা!

ঢাকাঃ বর্তমানে রাজনৈতিক পরিস্থিতি শান্ত। দেশে চলছে ইউপি নির্বাচন। কাউন্সিলের পর বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে কিছুটা উদ্দীপনা ভাব আসলেও আবার গ্রেপ্তার আতঙ্কে দেখা দিয়েছে। শুক্রবার গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নানকে ফের গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এর আগে বিএনপির মহাসচিব মির্জ ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে কারাগারে প্রেরণ ও খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধেও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিল আদালত। আজ শনিবার সকালে রাষ্ট্রদোহ মামলায় খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও সিনিয়র সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি পুলিশ। এসব ঘটনার পর থেকেই বিএনপির মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

বিএনপির একাধিক নেতা গ্রেফতার আতঙ্কের কথা স্বীকার করে বলেছেন, ‘নেতাকর্মীরা গ্রেফতার আতঙ্কে রয়েছেন। শুক্রবার গাজীপুরের মেয়র মান্নানকে আবারো ‘অযৌক্তিক’ ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। আজ শনিবার গ্রেফতার করা হয়েছে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শফিক রেহমানকে। এ থেকে বোঝা যাচ্ছে সরকার আবারও বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের গ্রেফতারের পরিকল্পনা করছে। ‘কাউন্সিলের পর বিএনপি নেতাকর্মীরা আবারও সক্রিয় হওয়ায় তাদের দমনের জন্য গ্রেফতার করছে বলে মন্তব্য বিএনপি নেতাদের।

৮ এপ্রিল রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশ মোতায়েন থাকায় গ্রেপ্তার আতঙ্কে ছিল নেতাকর্মীরা। ঐদিন থেকেই বিএনপির কার্যালয়ের আশপাশে পুলিশকে দায়িত্বপালন করতে দেখা যায়। ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী সন্দেহভাজনদের তল্লাশিও করা হয়। বিএনপিও এখন সিটি নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত৷ তবে সেখানেও গ্রেপ্তার আতঙ্ক বিএনপির প্রার্থীদের বেকায়দায় ফেলছে। বিএনপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, বিভিন্ন বাহিনীর যৌথ অভিযানে গত ১৫ দিনে বিভিন্ন জেলায় ২০ দলের অন্তত কয়েক হাজার নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিষ্ট শফিক রেহমানকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। আজ শনিবার সকাল আটটার দিকে তার ইস্কাটনস্থ বাসা থেকে ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। শফিক রেহমানের স্ত্রী তালেয়া রহমান জানিয়েছেন,‘সকাল পৌনে আটটার দিকে বৈশাখী টেলিভিশনের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে কয়েকজন লোক তার সঙ্গে দেখা করতে চায়। এসময় তিনি বাসা থেকে বের হলে তারা তাকে একটি গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়।’

তিনি জানান, যাওয়ার আগে তারা আমাদের বাসা বাবুর্চির কাছে নিজেদের ডিবি পুলিশ বলে পরিচয় দেন।

ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারের ডিসি মাফ হোসেন সরদার সাংবাদিক শফিক রেহমানকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, ‘গত বছরে পল্টন থানায় করা প্রধানমন্ত্রীর তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ চেষ্টা মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়ছে।’

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নানকে ফের গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে নাশকতার একটি মামলায় তাকে সালনা এলাকার নিজ বাড়ির সামনে থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জয়দেবপুর থানার ওসি রেজাউল হাসান রেজা জানান, নাশকতার একটি মামলায় সিটি মেয়র মান্নানকে ফের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুক্রবার চান্দনা চৌরাস্তায় বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায়ও তার ইন্ধন থাকতে পরে।

এর আগে বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আদালত থেকে জামিন পান মেয়র মান্নান। তিনি সর্বমোট ২২টি মামলায় উচ্চ আদালত থেকে জামিন লাভ করেন।

গত বছর ৪ ফেব্রুয়ারি রাতে গাজীপুরে যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোলবোমা হামলার মামলায় ১১ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় মেয়র মান্নান ঢাকার ডিওএসএইচ (বারিধারা) বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তিনি গ্রেপ্তার হওয়ায় পর ৮ মার্চ থেকে প্যানেল মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন। পরে ওই বছরের আগস্টে মান্নানকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। ইতোমধ্যে দুইটি মামলায় তার নামে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে।

খুলনা মহানগর বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মুন্সী সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ৩০মার্চ দুপুর ১২টায় নগরের পিকচার প্যালেস মোড়ের জলিল টাওয়ারের সামনে থেকে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে।

সোহাগী জাহান তনুর ধর্ষণ ও হত্যাকারীদের বিচার দাবিতে মহিলা দল আয়োজিত মানববন্ধনে অংশগ্রহণের জন্য তিনি সেখানে উপস্থিত হয়েছিলেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও মেহেরপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মাসুদ অরুনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ১১ এপ্রিল ভোরে মেহেরপুর শহরের নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, ২০১৩ সালে সরকার বিরোধী আন্দোলনের সময় নাশকতার একটি মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আস

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/১৬ এপ্রিল ২০১৬/রিপন ডেরি

Related posts