November 21, 2018

আদালত অবমাননার দায়ে চুয়াডাঙ্গা থানার ইনচার্জের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থার নির্দেশ


শামসুজ্জোহা পলাশ,
চুয়াডাঙ্গা থেকেঃ
আদালত আবমাননার কারনে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ তোজাম্মেল হকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিয়েছে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার রশীদুল হাসানকে জেলা ও দায়রা জজ এবং মানব পাচার অপরাধ দমন ট্রাইবুনাল-১ এর বিজ্ঞ বিচারক শিরীন কবিতা আখতার। আজ সোমবার দুপুরে এ নির্দেশ দেন তিনি।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ফৌজদারী বিবিধ পিটিশন- ৮৮/২০১৬ মামলার বাদী আব্দুল কাদেরের ছেলে রাজীব মিয়াকে মালয়েশিয়ায় ইলেকট্রিক মিস্ত্রির চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সেখানে নিয়ে যায়। এর বিনিময়ে ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা দেওয়ার পর ২৬ নভেম্বর’২০১৫ রাজীব মিয়াকে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে তাকে ৩ মাসের ভ্রমন ভিসা দিয়ে মানব পাচারকারীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। রাজীবের খোঁজ জানতে গেলেই জহুরুল ইসলাম আবারো ২ লাখ টাকা দাবী করে। এমতবস্থায় রাজীব নিখোঁজ রয়েছে। গত ১০ এপ্রিল’২০১৬ সকাল ৯টার দিকে চুয়াডাঙ্গার সদর উপজেলার গাড়াবাড়িয়া গ্রামের মরহুম নিয়ামত মন্ডলের ছেলে আব্দুল কাদের মানব পাচারের অভিযোগ এনে তিনি ওই গ্রামের স্কুলপাড়ার মরহুম মঙ্গল মন্ডলের ছেলে জহুরুল ইসলাম, জহুরুল ইসলামের ছেলে সামাদ আলী, মেয়ে নার্গিস বেগম, স্ত্রী সিপরান খাতুনের নামে মামলা করতে চাইলে থানায় মামলা নেয়নি।

মামলার বাদী আব্দুল কাদের চুয়াডাঙ্গা মানব পাচার অপরাধ দমন ট্রাইবুনাল -১ আদালতে মামলা করলে আদালত ওই মামলাটি সদর থানায় নথিভূক্ত করার জন্য নির্দেশ দিলেও তা অবমাননা করে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ তোজাম্মেল হক নথি ভুক্ত করেননি। এ ব্যাপারে আদালত কারন দর্শানোর জন্য আদেশ দিলে তাও তিনি মানেননি। এরই কারনে আদালত পুলিশ সুপারকে এ নির্দেশ দেয়।

উল্লেখ্য, আব্দুল কাদের বাদী হয়ে মানব পাচার প্রতিরোধ দমন আইনে ২০১২ এর ৬/৭/৮/৯/১০ ধারায় মামলা করে।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি

Related posts