September 26, 2018

‘হেতারা বেগ্গুন আঙ্গো নোয়াখালীর সন্তান’

ডেস্ক রিপোর্টঃ ও ভাই আন্নেরগো বাই কন্ডে? এক কথায় উত্তর নোয়াখালী। হেসে হয়তো হেতে কইবো ওখানে কি সব খালী। আরে ভাই থামেন, আজ মনে অনেক আনন্দ। জানেন না আমাদের মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ওই যে এদেশের বডডা দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হইছে। অঙ্গাতুন কাদের ভাই হাসিনা আপার এক্কেরে কাছে কাছে থাইবো। হেতো আঙো নোয়াখালীর সন্তান। ও তাই… ।

আর আন্ডা কি নেতা কম আছেনি। বাংলাদেশের আরেকটা বড় দল আছে না। ওই যে বিএনপি। আর হেই বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বাইও কিন্তু হেনীর ফুলগাজী উপজেলার শ্রীপুর ইউনিউয়নে মানে নোয়াখালিতে বুইজ্জেন্নি। বাংলাদশের জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল আছে না হেই দলের সভাপতি বাংলাদেশের সর্ব প্রথম পতাকা উত্তোলক আ.স.ম আব্দুর রবের বাইও নোয়াখলিতে। আন্ডা কি দাপট কম আছেনি।

আরো কই হুনেন,ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি গণজাগরণ আন্দোলনের নেত্রী লাকী আক্তারের বাড়িও হেনী জেলার হোনাজীতে। জামায়াত আছে না জামাত, ওই জামাতের আমির মকবুল আহমেদের বাইও কিন্তু হেনী জেলার দাগনভূঁঞা উপজেলার পূর্বচন্দ্রপূর ইউনিয়নের ওমরাবাদে। অঙ্গার শিবির সভাপতি আতিকুর রহমানের বাইও কিন্তু নোয়াখলিতে। আন্নে জানেননি ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে নেতা আছে প্রায় ৪ হালি আর ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে আছে এক ডজন।

শুধু নেতা নন আরো বহুত কিছু আছে হুনেন, অঙ্গর সেনাবাহিনীর প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হকের বাইও নোয়াখালিতে।ঢাকার মেয়র আনিসুল হকের বাইও নোয়াখালীতেগো..

আন্নে যেহেতো বাংলাদেশের নাগরিক আন্নেরে এগেন জানা থাইকতো ওইব। বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনকে চেনেন না? জি বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন আমাদের নোয়াখালীর সন্তান। আর ভাষা সৈনিক আবদুস সালামের বাইও হেনীর দাগনভুঁইয়া। শহীদ শহীদুল্লাহ, সেলিনা পারভীন এগুনের বাড়িও বৃহত্তর নোয়াখালিতে জানেন। আর সাংবাদিক ইকবাল সোবহান চৌধুরী, এবিএম মুসা, গিয়াস কামাল চৌধুরী, কামাল উদ্দিন সবুজ এইচ্ছা হাজার সাংবাদিক আছে। আন্ডা নোয়াখালির চলচিত্র মাধ্যম কল্পনা করা যায়না যাদের ছাড়া সেই এ.টি এম শামছুজ্জামান, তারিন মাহফুজ, টনি ডায়েস রোজী সামাদ, রামেন্দু মজুমদার ফেরদৌসী মজুমদার, নাট্যকার আহসান আলমগীর, মোস্তফা সারোয়ার ফারুকী হেতারা বেগ্গুন আঙ্গো নোয়াখালীর সন্তান।

আঙ্গো বাংলাদেশের সংসদের মাননীয় স্পীকার জনাবা শিরিন আক্তার আঙো নোয়াখালীর সন্তান। বাংলাদেশের সাবেক স্পীকার ও ডিসি মরহুম আব্দুল মালেক উকিল ও কিন্তু আমাদের নোয়াখালীর সন্তান বুইজ্জেন্নি।

দূর কিন্তু বেশী না, ঢাকা থেকে ১৫০ কি.মি. যাইতে লাগে সাড়ে তিন ঘণ্টা, আন্ডা নোয়াখালী এক্কেরে সাজানো গোছানো ফিটফাট পরিষ্কার নগরী, মানুষের মনগুলোও এক্কেরে সাদা। আসেন স্ব চোক্ষে দেখে যান হরান জুড়াই যাইবো। দাওয়াত রইলো………।।
যমুনানিউজ

Related posts