September 25, 2018

আটক তিথি নব্য জেএমবি প্রধান বাচ্চুর স্ত্রী

Captureঢাকা::

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার জঙ্গি আস্তানা থেকে তিন নারীকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আজ শনিবার ভোরে উপজেলার বামনপাড়ার একতলা বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এ সময় দুটি সুইসাইড ভেস্ট, গানপাউডার ও বিপুল পরিমাণ বোমা উদ্ধার করা হয়। কুষ্টিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কামরুল হাসান জানিয়েছেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিন নারী জানিয়েছেন, তাদের একজন বর্তমানে নব্য জেএমবির আমির আইয়ুব বাচ্চু ওরফে সজিবের স্ত্রী তিথি, নব্য জেএমবির সেকেন্ড-ইন কমান্ড আরমানের স্ত্রী সুমাইয়া ও তালি বেগম নামে একজন রয়েছেন।

এর আগে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা থেকে আসা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট ও কুষ্টিয়া জেলা পুলিশ যৌথভাবে ভেড়ামারার বামনপাড়ার ওই বাড়ি ঘিরে রেখে অভিযান চালায়। গত ৪ জুন ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম জানান, মুসা নিহত হওয়ার পর আইয়ুব বাচ্চুকে নব্য জেএমবির প্রধান করা হয়েছে। আইয়ুব বাচ্চুর তিন সহযোগী মনির হোসেন ওরফে সুমন, তৌহিদুল ইসলাম ওরফে তুহিন ও কামাল হোসেনকে গ্রেপ্তারের পর এই সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সুমন ও তুহিনকে সাভার থেকে এবং কামালকে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে মনিরুল ইসলাম বলেন, নব্য জেএমবির প্রধান মইনুল ওরফে মুসা মৌলভীবাজারের বড়হাটের জঙ্গি আস্তানায় নিহত হন। এরপর সংগঠনের হাল ধরেন আইয়ুব বাচ্চু। এটা তার ছদ্মনাম। তিনি সাভারেই থাকতেন। গত ২৭ ও ২৮ মে সাভারে যে দুটি বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালিয়েছিল, তার একটিতে থাকতেন আইয়ুব বাচ্চু। অভিযানের সময় তিনি বাড়িতে ছিলেন না। অভিযানের খবর পেয়ে জঙ্গি মনির হোসেন দ্রুত আইয়ুব বাচ্চুর স্ত্রীকে অন্যত্র সরিয়ে দেন।

তিনি বলেন, তামিম চৌধুরী নিহত হওয়ার পর নব্য জেএমবির দায়িত্ব নেন সারোয়ার জাহান। সারোয়ার নিহত হওয়ার পর নেতৃত্বে আসেন মইনুল ওরফে মুসা। মৌলভীবাজারের বড়হাটে পুলিশের অভিযানে মুসা নিহত হন। এরপর নেতৃত্বে আসেন আইয়ুব বাচ্চু। মনিরুল ইসলাম বলেন, কথিত এই আইয়ুব বাচ্চু মূলত তৃতীয় বা চতুর্থ সারির নেতা। তিনি মুসার সহযোগী ছিলেন। মুসা যখন সংগঠনের আমির ছিলেন, তখন বাচ্চু ছিলেন নায়েবে আমির। মুসা নিহত হওয়ার পর নেতৃত্বশূন্যতায় বাচ্চুকেই হাল ধরতে হয়।

Related posts