September 19, 2018

আজ ষষ্ঠ শ্রেণীর শিশুছাত্রী তানিয়ার বিয়ে; বর আসবে হেলিকপ্টারে চড়ে!

শিশুছাত্রী তানিয়ার বিয়ে

স্টাফ রিপোর্টারঃ   ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ষষ্ঠ শ্রেণীর শিশুছাত্রী তানিয়ার আজ বিয়ে। তানিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার কসবা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী। সে কসবা পৌর এলাকার বগাবাড়ী গ্রামের মো.মাহফুজ মিয়ার মেয়ে। তার হবু বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার ভাতুরিয়া গ্রামের বাসিন্দা ও প্রবাসী মো.খন্দকার আলম। বর আসবে হেলিকপ্টারে চড়ে। এজন্য থানায় অনুমতি চাওয়া হয়েছে। পুলিশ ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে বারবার বিয়ে বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অথচ পুরোদমে চলছে বিয়ের কার্যক্রম।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাওয়া তানিয়া বগাবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ২০১৪ সালে পঞ্চম শ্রেণীতে (পিএসসি) জিপিএ-৩.৫০ পেয়ে পাস করে। কসবা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে ২০১৫ শিক্ষাবর্ষে সে ষষ্ঠ শ্রেণীতে অধ্যয়নরত। কসবা পৌরসভা থেকে জন্মসনদ অনুযায়ী তার জন্মতারিখ ২০০১ সালের ১২ই নভেম্বর। গতকাল সন্ধ্যায় কসবা পৌর এলাকার বগাবাড়ী গ্রামে কনের বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, গ্রামের প্রধান সড়ক থেকে বাড়ি পর্যন্ত আলোকসজ্জা করা হয়েছে। বড় একটি তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। হেলিকপ্টার নামার জন্য জমিতে জায়গা করা হয়েছে। বরযাত্রীদের বসার জন্য বিশাল প্যান্ডেল করা হয়েছে। বাড়িতে সাজসাজ রব। চলছে গায়ে হলুদের কার্যক্রম। বাবুর্চিরা রান্নার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তানিয়ার মা খাদিজা বেগম বলেন, মেয়েটি দ্বিতীয় শ্রেণীতে দুই বছর, তৃতীয় শ্রেণীতে তিন বছর এবং পঞ্চম শ্রেণীতে দুই বছর পড়াশোনা করেছে। যদিও মেয়েটি ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়ে তবুও তার বিয়ের বয়স হয়েছে।

ভালো ছেলে পাওয়ায় তাকে বিয়ে দেয়া হচ্ছে। বাবা মাহফুজ মিয়া মুঠোফোনে বলেন, আমি গাড়িতে আছি, পড়ে কথা বলবো। কসবা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, তানিয়া ষষ্ঠ শ্রেণীতে পড়াশোনা করছে। জন্মসনদ অনুযায়ী তানিয়ার জন্ম ২০০১ সালের ১২ই নভেম্বর। কসবা উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা রৌনক আরা বলেন, মেয়েটি নাবালক। তার বিয়ের খবর পেয়ে পর পর দুই দিন বাড়িতে গিয়ে মেয়ের বাবা-মাকে পাওয়া যায়নি। মুঠোফোনে মেয়ের বাবাকে বিয়ে বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তথ্য-প্রমাণসহ অফিসে আসার কথা থাকলেও গতকাল পর্যন্ত আসেননি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে আলোচনা হয়েছে আজ সকালের মধ্যে অফিসে না এলে পুলিশ দিয়ে ধরে আনা হবে।

কসবা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বর হেলিকপ্টারে চড়ে আসবে বলে মেয়েটির বাবা গত সোমবার থানায় লিখিত আবেদন করেছেন। কিন্তু মেয়েটির বয়স কম জানতে পেরে আমরা এ বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছি। মেয়ের বাড়িতে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। সত্যতা পাওয়া গেলে বিয়ে বন্ধের ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ আরিফুল ইসলাম বলেন, মেয়েটির বয়স কম। তার বিয়ের বয়স হয়নি। তার কার্যালয় থেকে বিয়ে বন্ধের জন্য দুই দফা লোক পাঠানো হয়েছে। যদি বিয়ে ভেঙে দেয়া না হয় তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts