September 24, 2018

আওয়ামী লীগের বিপুল জয়

প্রথমবার দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত পৌরসভার মেয়র পদের নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বিপুল জয় পেয়েছে। শংকা থাকলেও বড় ধরণের সংঘাত ছাড়াই ভোট সম্পন্ন হয়েছে। ২৩৪টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও মাধবদীর ভোট বাতিল করা হয়।

সর্বশেষ রাত পৌনে ১১টা পর্যন্ত বেসরকারিভাবে ২৩৩ পৌরসভার মেয়র পদে ২১০টির ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীরা নৌকা প্রতীকে ১৬৭টি পৌরসভায় বিজয়ী হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত প্রার্থীরা ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ১৭টি পৌরসভায় বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়াও লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে জাতীয় পার্টি-জাপার ১ জন, স্বতন্ত্র ২৫ জন মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। যদিও এরই মধ্যে ৭ জন মেয়র, ৯৪ জন সাধারণ কাউন্সিলর ও ৪০ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলরসহ মোট ১৪১ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়ে আছেন।

নির্বাচনে ২০টি রাজনৈতিক ও স্বতন্ত্রসহ ৯৪৫জন মেয়র প্রার্থী অংশ নেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের ২৩৪ জন, বিএনপি ২২৩ জন, জাতীয় পার্টি-জাপা ৭৪ জন, জাতীয় পার্টি-জেপি ৬জনসহ অন্যান্য দলের মোট ৬৬০জন প্রার্থী। নির্বাচনে ২৮৫ জন স্বতন্ত্র অংশ নেন। এছাড়াও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৮ হাজার ৭৪৬ জন ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ২ হাজার ৪৮০ জন প্রার্থী অংশ নেন। আওয়ামী লীগ এই নির্বাচনকে এ যাবত্কালের সবচেয়ে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ বলে আখ্যায়িত করেছে। অন্যদিকে বিএনপি অভিযোগ করেছে অন্তত ২০০ পৌরসভায় কেন্দ্র দখলের ঘটনা ঘটেছে।

আওয়ামী লীগের বিজয়ীরা

আওয়ামী লীগের বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন পীরগঞ্জ পৌরসভা মো. কসিরুল আলম, শেরপুর নলিতাবাড়ির আবু বাক্কার সিদ্দিক, রানীশংকৈল পৌরসভা আলমগীর সরকার, টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর মাসুদুল হক মাসুদ,পাবনার ঈশ্বরদী আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, নেত্রকোনার দুর্গাপুর পৌরসভা মৌলভী মো. আব্দুস সালাম, ফরিদপুরের নগরকান্দায় রায়হান উদ্দিন মিয়া, বরিশালের বানারীপাড়ায় সুভাষ চন্দ্র শীল, লালমনিরহাট পৌরসভা রিয়াজুল ইসলাম রিন্টু, পাটগ্রাম পৌরসভা শমসের আলী, বগুড়ার শেরপুর পৌরসভা আব্দুস সাত্তার, শিবগঞ্জ তৌহিদুর রহমান মানিক, কাহালু হেলালউদ্দিন কবিরাজ, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভা মো. মিজানুর রহমান, লাকসামে অধ্যাপক আবুল খায়ের, দাউদকান্দিতে নাঈম ইউছুফ সেইন, চান্দিনায় মফিজুল ইসলাম, হোমনায়  নজরুল ইসলাম, ঢাকার ধামরাইয়ের গোলাম কবির, কুষ্টিয়ার মিরপুর পৌরসভা হাজী এনামুল হক, হবিগঞ্জের মাধবপুরের হিরন্দ্র লাল সাহা, শায়েস্তাগঞ্জে সালেক মিয়া, সুনাগঞ্জের জগন্নাথপুর আব্দুল মোনাফ, ময়মনসিংহের গৌরিপুর সৈয়দ রফিকুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম আব্দুল জলিল, বরিশাল উজিরপুর মো. গিয়াসউদ্দিন, শেরপুর নকলা মো.হাফিজুর রহমান লিটন, সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ পৌরসভা গাজী আব্দুল্লাহ আল পাঠান, উল্লাপাড়া পৌরসভা নজরুল ইসলাম, বেলকুচি পৌরসভা আশানুর বিশ্বাস, শাহজাদপুর পৌরসভা হালিমুল হক মিরু, ঝালকাঠির নলছিটি তছলিম উদ্দিন চৌধুরী, খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা সামছুল হক, নাটোরের গুরুদাসপুর মো. শাহনেওয়াজ আলী,  জয়পুরহাট পৌরসভায় মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, কালাইতে খন্দকার আলিমুল আলম জন, আক্কেলপুরে গোলাম মাহফুজ অবসর চৌধুরী, লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটোওয়ারী, রায়পুরে হাজী মো. ইসমাইল হোসেন খোকন, রামগতিতে হাজী মো. মেজবাহ উদ্দিন মেজু, টাঙ্গাইলের গোপালপুরে রকিবুল হক ছানা, ধনবাড়িতে মঞ্জুরুল ইসলাম তপন, মধুপুরে মাসুদ পারভেজ, মির্জাপুরে মো. সাহাদত হোসেন সুমন, সখিপুরে মুক্তিযোদ্ধা আবু হানিফ আজাদ, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মো. জুয়েল আহমদ, ময়মনসিংয়ের নান্দাইলে রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া, ব্রাক্ষণবাড়িয়ার আখাউড়ায়, মো. তাকজিল খলিফা কাজল, রূপগঞ্জের তারাব পৌরসভায় হাসিনা গাজী, গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় শেখ আহম্মেদ হোসেন মির্জা, জামালপুরের মেলান্দহে শফিক জাহেদঅ রবিন, শরীয়তপুর পৌরসভায় রফিকুল ইসলাম কোতোয়াল, নড়িয়ায় হায়দার আলী, ডামুড্ডায় হুমায়ুন কবীর বাচ্চু, ভেদরগঞ্জে আ. মান্নান হাওলাদার, চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় হাসান কাদির গণু, পাবনার ফরিদপুরে খ ম কামরুজ্জামান মাজেদ, বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ পৌরসভায় কামাল উদ্দিন খান, গাইবান্ধার সদরে এডভোকেট শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির, সুন্দরগঞ্জে আব্দুল্লাহ আল মামুন,  গোবিন্দগঞ্জে আতাউর রহমান সরকার, বরগুনার বেতাগী পৌরসভায় এ বি এম গোলাম কবির (একটি কেন্দ্র স্থগিত), পাথরঘাটা পৌরসভায় মো. আনোয়ার হোসেন আকন, যশোরের বাঘারপাড়ায় কামারুজ্জামান, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে মাহফুজুর রহমান, খুলনার পাইকগাছায় সেলিম জাহাঙ্গীর, চালনায় সনত্ কুমার বিশ্বাস, রংপুরের বদরগঞ্জে উত্তম কুমার সাহা, শেরপুর পৌরসভায় গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া, শ্রীবর্দিতে আবু সাঈদ, দিনাজপুরে হাকিমপুর পৌরসভায় মো. এস এম জামিল হোসেন, নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় আসাদুল হক ভুইয়া, নড়াইলে মো. জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে আব্দুল কাইয়ুম, কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে শামসুজ্জামান অরুন, ভেড়ামারায় শামিমুল ইসলাম, চট্টগ্রামের চন্দনাইশে মাহবুবুল আলম, সীতাকুন্ডে বদিউল আলম, মীরসরাইয়ে গিয়াসউদ্দিন, ভোলার দৌলতখানে জাকির হোসেন, পাবনার ভাঙ্গুরায় গোলাম হাসনাইন রাসেল, ফেনীর দাগনভূইয়ায় ওমর ফারুক, নওগাঁয় দেওয়ান ছেকার, নাটোর পৌরসভায় উমা চৌধুরী।

বিএনপির বিজয়ীরা হলেন হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে নাজিম উদ্দিন শামস,সান্তাহারে তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টো, গাবতলী সাইফুল ইসলাম, পঞ্চগড় পৌরসভা তৌহিদুল ইসলাম, দিনাজপুর পৌরসভায় সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, কুমিল্লার বরুড়া মো. জসিম উদিদ্ন পাটোয়ারি, হবিগঞ্জ সদর জি কে গউছ, নবীগঞ্জে ছাবির হোসেন চৌধুরী, সাতক্ষীরার কলারোয়া গাজী আক্তারুল ইসলাম, ঠাকুরগাঁও পৌরসভায় মির্জা ফয়সল আমীন, ময়মনসিংহের ফুলপুরে  আমিনুল হক, নাটোরের লালপুর নজরুল ইসলাম।

জাতীয় পার্টি-জাপার জয়ী হলেন কুড়িগ্রামে নাগেশ্বরী পৌরসভায় আব্দুর রহমান মিয়া।

স্বতন্ত্র বিজয়ীরা হলেন নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও সাদেকুর রহমান ভুইয়া, নড়াইলের কালিয়া ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন, বগুড়ার ধুনটে এজিএম বাদশাহ, চুয়াডাঙ্গা ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, দিনাজপুর বিরামপুর লিয়াকত আলী সরকার টুটুল, খাগড়াছড়িতে মো. রফিকুল আলম, মেহেরপুরের গাংনীতে আশরাফুল ইসলাম (আশরাফ ভেন্ডার), চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে কারিমূল হক রাজিন, পাবনার চাটমোহরে মির্জা রেজাউল করিম দুলাল, বরগুনা সদর পৌরসভায় শাহাদাত হোসেন, দিনাজপুরের পীরগঞ্জে জামায়াতের মাওলানা মো. হানিফ, ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে মোজাফফর হোসেন।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন/ডেরি

Related posts