November 22, 2018

আইএসের ভয়ের নাম নারী!

জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) নারীদের ভয় পায়। এমনটাই মনে করেন সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে আইএসের বিরুদ্ধে লড়াইরত কুর্দি নারী যোদ্ধারা।

ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকার অনলাইনে প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।
কুর্দিস পিপলস প্রোটেকশন ইউনিটের নারী শাখাটি তিন বছর আগে গঠিত হয়। শাখাটি প্রায় ১০ হাজার স্বেচ্ছাসেবক সেনা নিয়ে গঠিত।

উইমেন্স প্রোটেকশন ইউনিটের ওই নারী যোদ্ধারা আইএসের কাছ থেকে কোবানি পুনর্দখলের লড়াইয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। তাদের সাহসী ভূমিকা প্রশংসিত হচ্ছে।

কুর্দি নারী যোদ্ধাদের অন্যতম কমান্ডার ২১ বছর বয়সী তেলহেলদেন। তিনি সিএনএনকে বলেন, আইএস ভাবে তারা ইসলামের নামে যুদ্ধ করছে। তাদের বিশ্বাস, আইএসের কেউ যদি একজন নারী, একজন কুর্দি নারীর হাতে নিহত হয়, তাহলে তারা বেহেশতে যেতে পারবে না। তারা নারীদের ভয় পায়।

সিরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আল-হাসাকা প্রদেশের সমরক্ষেত্র থেকে এসব কথা বলছিলেন তেলহেলদেন। ওই প্রদেশের আল-হউল থেকে সম্প্রতি আইএসকে বিতাড়িত করেছেন তেলহেলদেন ও তাঁর নারী যোদ্ধারা।
ইফেলিন নামের ২০ বছর বয়সী আরেক কুর্দি নারী যোদ্ধা বলেন, অঞ্চলটিতে আইএস যদি আবার ফিরে আসার চেষ্টা করে, তাদের একজনকেও জীবিত রাখা হবে না।

নারীদের ব্যাপারে আইএসের চরম নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি ও বর্বর আচরণ ইতিমধ্যে বিশ্ববাসী জেনে গেছে। নারীদের ব্যাপারে আইএসের কথিত শরিয়া, নারীর ওপর নির্যাতন-নিপীড়ন-বর্বরতা বিশ্ববিবেককে নাড়িয়ে দিয়েছে। সবাই আইএসের নিন্দা করছে।

এমন প্রেক্ষাপটে আইএসের অধীনে গিয়ে ভয়াবহ পরিণতি বরণ করা এড়াতে জীবনের ঝুঁকি উপেক্ষা করে কুর্দিস নারীরা হাতে অস্ত্র নিয়েছে। তারা আইএসের বিরুদ্ধে বীরের মতো লড়ে যাচ্ছে।
২৭ বছর বয়সী কুর্দি নারী যোদ্ধা নুজান বলেন, ‘নারীরা আইএসের লক্ষ্যবস্তু।’
নুজানের বলেন, নিজেদের প্রথমে রক্ষা করা সম্মানের বিষয়। এরপর রক্ষা করতে হবে পরিবার ও ভূখণ্ডকে।

দি গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/মেহেদি/ডেরি

Related posts