September 20, 2018

অভ্যুত্থানচেষ্টায় জড়িতদের কি ভাবে রাখা হয়েছে?

ইন্টার ন্যাশনাল ডেস্কঃ  তুরস্কে নির্বাচিত সরকারকে উৎখাতে সেনাবাহিনীর একাংশের অভ্যুত্থান ব্যর্থ হওয়ার পর এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িতদের আটক করা হয়েছে। তাদেরকে ‘ভাইরাস’ উল্লেখ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান বলেছেন, এদের ক্ষমা নেই। তুরস্কে মৃত্যুদণ্ড না থাকলেও তাদের শাস্তির জন্য মৃত্যুদণ্ড পুনর্বহালের দাবি উঠেছে।

অভ্যুত্থানের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে সেনাবাহিনীর জেনারেল ও বিচারপতিসহ ইতিমধ্যে প্রায় ছয় হাজার লোককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত এসব লোককে পেছনে হাত বেঁধে একটি রুমে আটক করে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে সোমবার আট হাজার পুলিশ সদস্যকে বহিষ্কারও করা হয়েছে।

সিএনএন প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের ছবিতে দেখা যায়, গ্রেপ্তারকৃদের শুধু হাফ প্যান্ট পরিয়ে রাখা হয়েছে। টিন দিয়ে বেষ্টিত একটি রুমে বালুর উপর বসিয়ে রাখা হয়েছে তাদেরকে।

তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদারিম জানিয়েছে, ব্যর্থ ওই অভ্যুত্থানে ২৩২ জন নিহত হয়েছে। এর আগে অফিসিয়ালভাবে বলা হয়েছে, ওই সংঘর্ষে ২৯২ জন নিহত হয়েছে। মৃতের সংখ্যা কমানোর ব্যাপারে কোনো ব্যাখ্যা দেয়নি তুরস্ক সরকার।

এদিকে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী বিনালি ইলদারিম উদ্ধৃতি দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, ব্যর্থ ওই অভ্যুত্থানে ২০৮ জন মারা গেছে। এরমধ্যে ৬০ জন সেনাসদস্য ও ১৪৫ জন সাধারণ মানুষ। এ ঘটনায় এক হাজার ৪৯১ জন আহত হয়েছে।

গত শুক্রবার গভীর রাতে তুরস্কে এই সেনা অভ্যুত্থানের চেষ্টা চালানো হয়। তবে সাধারণ জনগণ ওই অভ্যুত্থান ব্যর্থ করে দেয়। অভ্যুত্থানচেষ্টার শুরুতেই এরদোয়ান হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন, এর সঙ্গে জড়িতদের চড়া মূল্য দিতে হবে।

Related posts