November 16, 2018

অব্যবহৃত প্লাস্টিকের বোতলে এয়ার কন্ডিশন!

ঢাকাঃ  একটি অব্যবহৃত প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে কী করা যায়? একটা ফুলদানি কিংবা একটা ফুলের টব? একটা শীতাতপনিয়ন্ত্রক ইউনিট তৈরি করা যায় এটা চিন্তা করা দুষ্কর। বিশ্বাস করেন আর না করেন, অব্যবহৃত প্লাস্টিকের বোতলে কোনো বিদ্যুৎ সংযোগ ছাড়াই আশিষ পাল নামের এক ব্যক্তি পরিবেশ-বান্ধব এয়ার কন্ডিশন (এসি) তৈরি করেছেন।

বিশ্বাস করতে আরো কষ্ট হবে, দেশের ২৫ হাজার বাড়িতে এই পদ্ধতিতে এসি লাগানো শেষ হয়েছে! প্রচণ্ড গরমে হাঁসফাশ করতে হবে না এখন। সহজলভ্য দামে এই এয়ার কন্ডিশন ব্যবহার করা যাবে।

এই অভিনব আবিষ্কারের পেছনে কে আছেন?

তার নাম আশিষ পাল। বিজ্ঞানের প্রতি তার বিশেষ টান। হঠাতই এরকম একটা চিন্তা তার মাথায় খেললো। কীভাবে দেশের গরীব মানুষের বাসায় বিদ্যুৎ সংযোগ ছাড়াই শীতাতপ সাহায্য দেয়া যায় এই চিন্তা মাথায় খেলতে থাকলো। এরপরেই তিনি প্লাস্টিক বোতল দিয়ে এর পরীক্ষা চালাতে থাকলেন। এই অভিনব এয়ার কন্ডিশন আবিষ্কার করলেন। যা রীতিমত অবিশ্বাস্য।

কীভাবে এই এসি তৈরি করবেন?

এই শীতাতপনিয়ন্ত্রক ইউনিট তৈরি করতে প্রথমে প্লাস্টিকে বোতলকে অর্ধেক ভাগ করবেন। সেটা বোর্ডে সেটে দিবেন। তারপর সেটি নিয়মানুযায়ী বাড়ির এক পাশে বোর্ডের গর্তে ঢুকিয়ে দিবেন। বোতলগুলোতে যে গর্ত থাকে সেগুলো রুমের মধ্যে প্রবেশ করবে। বাতাসে ভরে যাবে আপনার ঘর। বাইরের হালকা বাতাসেও অতি সহজে এই বোতলগুলোর মধ্য দিয়ে ঘরের গরম আবহাওয়াকে ঠাণ্ডা করে দিবে। এরজন্য কোনো প্রকার বিদ্যুৎ সংযোগের প্রয়োজন পড়বে না।

কীভাবে কাজ করে এই ইউনিট?

“প্রচণ্ড গরমের দিনে এটা খুবই ভালো কাজ করবে। ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত কমাতে পারে এই ইউনিট। তাপমাত্রা ৩০ বা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হোক না কেনো, এটা সহজেই আপনার ঘরকে ঠাণ্ডা করে দিবে।”জানালেন আশিষ পাল।

তিনি জানালেন, “গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকেই গ্রামীণ ইনটেল সোশ্যাল বিজনেস লি. এর একটি দলের সঙ্গে কাজ করছি। এ পর্যন্ত দেশের ২৫ হাজার বাড়িতে এটা তৈরি করা হয়েছে। এর কাঁচামাল সংগ্রহে তেমন সমস্যা পেতে হয়না। অতি সহজেই যে কেউ এটা বানিয়ে সুবিধা নিতে পারবেন।”

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডটকম/রিপন/ডেরি ৮ মে ২০১৬

Related posts