September 22, 2018

অবৈধ ভাবে সেগুন গাছ কাটলেও নিরব প্রসাশন

আল-মামুন, খাগড়াছড়ি প্রতিনিধিঃ  খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার জালিয়াপাড়ায় বন আইন অমান্য করে সেগুন গাছ কাটলেও নিরব প্রসাশন। এক শ্রেণীর পাচারকারী মূল্যবান সেগুন গাছ কর্তন করার পিছনে একটি মহল মদদ দিচ্ছে। দুই শতাদিক অবৈধ ভাবে সেগুন গাছ নিধন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানাযায় মৃত আব্দুর রাজ্জাক এর ছেলেরা মো: আব্দুর রহিম, আব্দুর খালেক, মালেক, আলিম,আব্দুর আজিজ, সর্বসাং- জালিয়াপাড়া,  গুইমারা, খাগড়াছড়ি। তারা প্রকাশ্য দিনের বেলায় ভাড়ায় লোকজন নিয়ে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে গাছ কেটেছে। রহস্যজনক কারনে গাছ কাটার চারদিন পরেও লক্ষ লক্ষ টাকার সেগুন গাছ আটক করেনি স্থানীয় বন কর্মকর্তা।
অভিযোগকারী মো: আবুল হাসেম আজ বুধবার সকালে গুইমারা প্রেস ক্লাবে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। তিনি বলেন তার লাগানো সেগুন গাছ গুলো অবৈধ ভাবে পাচার করার জন্য কর্তন করেছে  গুইমারা উপজেলার জালিয়াপাড়া বিজিপি সেক্টরের পশ্চিম পাশ্বে উল্লেখিত ব্যাক্তিরা। সেগুন গাছ কাটার বিষয়টি বিভাগীয় বন কর্মকর্তা খাগড়াছড়িকে জানানো হলে। পরে ২জন বন বিভাগের লোক ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করে এবং অবৈধ ভাবে গাছ কাঁটতে নিষেধ করে তাহা অমান্য করে বিকালে আরো লোকজন নিয়ে গাছ কর্তন করে। কর্তনকৃত গাছ গুলো সরজমিনে স্থানীয় সাংবাদিকেরা দেখতে গেলে তাদেরকে ও বিভিন্ন ভাবে হুমকি দেয়।

সেগুন গাছ কাটার বিষয়ে জালিয়াপাড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মো: হারুনুর রশিদ এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান গাছ গুলো পাচার হবে না কিন্তু গাছ পাচার করার চেষ্টা করলে স্থানীয় রেঞ্জে অবগত করলে আমরা সাথে সাথে আটক করে ব্যবস্থা নিবো এবং স্থানীয় নির্বাহী কর্মকর্তা কাটা অবস্থায় গাছ গুলো জব্দ করার নির্দেশ দিলে আমরা ব্যবস্থা নিবো।

অভিযুক্তরা সেগুন গাছ গুলো বিক্রর উদ্দেশ্যে কেটেছেন স্থানীয় প্রনাশন বিষয়টি জানিয়েছেন বলে স্বিকার করেছেন। সচেতন মহলের অভিমত এভাবে জাতীয় গাছ অবৈধ ভাবে কেটে সরকারী রাজস্ব কর ফাঁকী দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। সেগুন গাছ কর্তনকারী ও  মদদ দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানিয়েছে।

অভিযোগকারী হাসেম জানান অবৈধ ভাবে সেগুন গাছ কাটার বিষয়টি সাংবাদিক ও প্রসাশনকে জানানোর কারণে তাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিচ্ছে।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/১৮ মে ২০১৬

Related posts