November 18, 2018

অবশেষে নাটকীয়তার অবসানঃ আটক স্বামী,দেবর,ভাসুর!

আল-মামুন,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি: খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালার কবাখালীতে গৃহবধু রহস্যজনক মৃত্যুর এক দির পর যৌতকের জন্য  শ্বাসরোধ করে হত্যা ও আত্মহত্যার অপপ্রচারের অভিযোগ গ্রহণ করে ৫ জনকে আসামীকে আটক করে দীঘিনালা থানা পুলিশ। আটককৃতরা হচ্ছে- হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত প্রধান আসামী-নিহত গৃহবধুর স্বামী নিজাম মজুমদার (২৬) দেবর-আরমান (২৩) ও ভাসুর মো: জসিম উদ্দিন।

সোমবার রাতে “নিহত আফসানা মিনি মুক্তা”র মা নুর নাহার এ অভিযোগ করেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দীঘিনালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: মিজানুর রহমান জানান, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর এজাহার গ্রহণ করা হয়েছে। যার নং ০৪/১৬, তাং ২৫/০৪/২০১৬। অভিযুক্ত ৩ জনকে আটক করতে পুলিশ সক্ষম হয়েছে। অন্যান্যদের আটকে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

সোমবার দিন ভর দীঘিনালায় স্থানীয় প্রভাবশালীদের দফা-রফার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। গত (২৪ এপ্রিল) রবিবার সকালে দীঘিনালার কবাখালী মুসলিমপাড়া এলাকায় শ্বাশুড়ালয়ে গৃহবধু আফসানা মিনি মুক্তার রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। পুলিশ নিহত মুক্তার ফ্যানের সাথে ঝুলন্তলাশ উদ্ধার করে।

এদিকে স্বামীরবাড়ী লোকজন কর্তৃক আফসানা মিনি মুক্তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তা পরিকল্পিত ভাবে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে দিয়ে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে আসছে বলে অভিযোগ করেন নিহতের স্বজনরা। এসময় হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেফতার ও বিচার দাবী করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেন স্থানীয়রা।

অভিযুক্ত ৫ জনের মধ্যে ৩ জনকে আটক করা হলেও ঘটনার পর থেকে নিহতের শ্বাশুড়ী মাফিয়া বেগম অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ও অপর জন্য ঘাঁ ঢাকা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইতি মধ্যে প্রভাবশালীরা থানায় আসা যাওয়াসহ সমঝোতার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে বলে জানা গেছে।

গত দুই বছর আগে দীঘিনালা উপজেলার কবাখালীর বাসিন্দা মৃত নুর মোহাম্মদ মজুমদারের মেঝো ছেলে নিজাম মজুমদারের সাথে মুক্তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুক দাবী করে মুক্তাকে নির্যাতন চালানো হতো। এ বিষয়ে গত কয়েক মাস আগেও সালিশ বৈঠকের ঘটনা ঘটে। সম্প্রতি একই দাবীতে মুক্তার উপর নির্যাতন চালানো হলে খাগড়াছড়ি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

দ্যা গ্লোবাল নিউজ ২৪ ডট কম/রিপন ডেরি/২৫ এপ্রিল ২০১৬

Related posts