October 20, 2018

অন্ধকার সাইবার জগতে বাংলাদেশী এক হ্যাকারের গল্প

fপ্রযুক্তি ডেস্ক::বিশ্বের অন্তত ৯৯টি দেশে বড় ধরনের সাইবার হামলার পর আবারও আলোচনা হচ্ছে হ্যাকিং ও হ্যাকারদের নিয়ে।

বলা হচ্ছে, সারা বিশ্বে বহু হ্যাকার সারাক্ষণই বিভিন্ন দেশ, প্রতিষ্ঠান, সরকার ও সংস্থার ওয়েবসাইট, কম্পিউটার সিস্টেম এমনকি ব্যক্তিগত কম্পিউটারও হ্যাক করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

এই হ্যাকিং কতোটা সহজ, কেনো তারা হ্যাক করেন, কিভাবে করেন – এসব নিয়ে বিবিসি বাংলার মিজানুর রহমান খান কথা বলেছেন একজন হ্যাকারের সাথে। তিনি অবশ্য দাবি করেছেন হ্যাকিং করা তিনি ছেড়ে দিয়েছেন। তার নাম পরিচয় এখানে গোপন রাখা হলো।

যেভাবে শুরু

তিনি জানান, ক্লাস এইটে পড়ার সময় তার প্রথম পরিচয় হয় হ্যাকিং এর জগতের সাথে। তিনি জানান, তার চেয়েও কম বয়সী ছেলেরা তখন হ্যাকিং করতো বলে তিনি তখন দেখতে পান।

তিনি দেখলেন, তাদের কেউ কেউ পঞ্চম ও ষষ্ঠ শ্রেণিতেও পড়তো। পরে কম্পিউটার জগতের মাধ্যমেই অন্যান্য হ্যাকারদের সাথে ধীরে ধীরে তার পরিচয় ঘটতে শুরু করে।

হ্যাকাররা ইন্টারনেটের যে অন্ধকার জগতে ঘোরাফেরা করেন তাকে বলা হয় ডিপ ওয়েব। সেখানেই সাইবার অপরাধীদের আনাগোনা।

তিনি বলেন, “আমরা জানি পৃথিবীর এক ভাগ স্থল আর তিন ভাগ জল। এবং সেই পানির নিচে কি আছে সেটাও কেউ জানে না। ডিপ ওয়েব সেরকমই একটি জগৎ।”

“গুগল, আমাজন এগুলো হচ্ছে স্থলভাগের মতো। আর ডিপ ওয়েব হচ্ছে পানির নিচে গভীর অন্ধকার জগতের মতো।”

অন্ধকার জগৎ ডিপ ওয়ে

সাধারণ কম্পিউটার ব্যবহারকারীরা এই ডিপ ওয়েবে যেতে পারে না। হ্যাকার, সাইবার ক্রিমিনাল, মাফিয়া, বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা এই জগতে বিচরণ করেন। তাদের সেই দক্ষতা রয়েছে।

তিনি জানান, বিভিন্ন দেশে হ্যাকিং হচ্ছে – এরকম খবরাখবর দেখে তিনি নিজেও একদিন হ্যাকিং করার ব্যাপারে উৎসাহিত হয়েছিলেন।

“প্রথমে আমার মনে হলো দেখি তো জিনিসটা কি। তখন আমি গুগলে সার্চ করতে শুরু করি। জানতে চেষ্টা করি যে হ্যাকারদের ফোরাম কোথায়। এসবের কিছুটা তথ্য সেখানে পাওয়াও যায়।”

“সেখান থেকেই আমি ডিপ ওয়েবের সন্ধান পাই। একটি ফোরামের কথা জানতে পারি। তখন এনিয়ে কিছুটা পড়াশোনা করার পর আমার চোখ কপালে উঠে যায়। আমি সিদ্ধান্ত নেই যে এই রোমাঞ্চকর জগতেই আমাকে থাকতে হবে।”

তখনই তিনি শিখে যান ডিপ ওয়েবে কিভাবে লগ ইন করতে হয়, কিভাবে সার্চ করতে হয়, তারপর শেখেন কিভাবে অন্যের কম্িউটারে হানা দেওয়া যায় ইত্যাদি ইত্যাদি। তারপর ওই ডিপ ওয়েবেই এক এক করে আরো অনেক হ্যাকারের সাথে তার পরিচয় ঘটতে শুরু করে।

তিনি জানান, তারপর তিনি নিজে নিজেই ধীরে ধীরে সবকিছু শিখতে শুরু করেন।

কিভাবে শেখা

নিজের ঘরে ছোট্ট একটা ল্যাপটপ কোলের ওপর বসিয়ে দিনরাত কাজ করতে শুরু করেন তিনি। কাজ মানে হ্যাকিং শেখা। এক পর্যায়ে সেটা তার নেশার মতো হয়ে দাঁড়ায়।

তিনি জানান, কখনো কখনো টানা তিন থেকে চারদিনও ঘরের দরজা বন্ধ করে কম্পিউটার নিয়ে বসেছিলেন এমন ঘটনাও ঘটেছে।

“কেউ যদি বলে যে ভাই আমি হ্যাকিং শিখতে চাই সে জীবনেও কিছু করতে পারবে না। কিন্তু যদি নিজের আগ্রহ থাকে তাহলে সে নিজে নিজেই আস্তে আস্তে একদিন অনেক কিছুই শিখে ফেলবে।”

“আমাকে জিতে আসতে হবে। এটা হচ্ছে সোজা কথা। এর জন্যে আমাকে যতো নিচে নামতে হবে আমি নামবো। কোন অসুবিধা নেই- এটাই হলো আমাদের নীতি,” বলেন তিনি।

“অনেক সময় দেখা গেছে, আমাদের পাল্টা সাইবার আক্রমণের কারণে পাকিস্তানি হ্যাকারদের পেছনে থানা পুলিশও লেগে যেতো। তারা তাদেরকে বলতো যে তোমাদের জন্যে আমাদের দেশে সাইবার হামলা হচ্ছে। একই রকমের ঘটনা ঘটতো বাংলাদেশেও।”

সাইবার যুদ্ধের কৌশল

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এই হ্যাকার জানান, পাকিস্তানের সাথে সাইবার যুদ্ধের সময় তারা দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে কাজ করতেন। একটি গ্রুপের কাজ ছিলো পাকিস্তানের ওয়েবসাইটগুলোতে আক্রমণ করা আর অন্য গ্রুপটি হ্যাকিং ঠেকাতো বা হ্যাকিং এর শিকার হলে ওই ওয়েবসাইট পুনরায় সচল করে দিতো।

“পাকিস্তানিরা হয়তো একশোটা ওয়েবসাইট হ্যাক করেছে কিন্তু তারা দেখলো যে মাত্র কুড়িটি হ্যাক হয়েছে। তার অর্থ বাকি ৮০টি সাইট আমরা ইতোমধ্যেই সচল করে ফেলেছি। তখন তারা বিভ্রান্ত হয়ে পড়তো।”

তিনি জানান, পাকিস্তানে সাইবার আক্রমণের সময় তারা হিটলারের ‘ব্লিটজ ক্রিগ’ কৌশল অনুসরণ করতেন।

“সবকিছু নিয়ে সর্বশক্তি প্রয়োগ করে একসাথে ১০০টা আক্রমণ করা। তারপর কিছুক্ষণ চুপ করে থাকা। তারপর আবার একসাথে অনেকগুলো আক্রমণ করা। এভাবে আমরা ওদের ভয়ে হতভম্ব করে দিতাম।”

তিনি জানান, পাকিস্তান ছাড়াও তিনি ইন্দোনেশিয়া, মিয়ানমার এবং ভারতের সাথেও সাইবার যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন।

তিনি জানান, ইউরোপ অ্যামেরিকার সরকারি নিরাপদ ওয়েবসাইটগুলোতে তারা ঢুকেছিলেন। বিশেষ করে তিনি উল্লেখ করেন ইসরায়েলি ওয়েবসাইট হ্যাক করার কথা।

“ইসরায়েলে একটি ওয়েবসাইট হ্যাক হলেই সেটা আন্তর্জাতিক খবর হয়। কারণ দেশটির সাইবার নিরাপত্তা খুবই কঠোর। কিন্তু এমন দিন গেছে যে আমরা একদিনেই ৪০ থেকে ৫০টি ওয়েবসাইট হ্যাক করেছি।”

তিনি জানান, সারা বিশ্বে হ্যাকারদের এরকম কয়েক হাজার গ্রুপ সক্রিয় রয়েছে।

হ্যাকারদের এই প্রতিভা ও দক্ষতার জন্যে অনেক প্রতিষ্ঠানে তাদেরকে চাকরিও দেওয়া হয়। তাদেরকে নেওয়া হয় হ্যাকিং এর হাত থেকে নিজেদের রক্ষা করার জন্যে।

তিনি জানান, অনুতাপ থেকে অনেকে একসময় হ্যাকিং করা ছেড়ে দেন। কারণ তারা বুঝতে পারেন যা করা হচ্ছে সেটা ঠিক নয়।

তবে তিনি বলেন, যারা অন্য দেশের সাথে সাইবার যুদ্ধ করেন তাদের মধ্যে হয়তো এই অনুতাপটা কাজ করে না।

এখন তিনি আর হ্যাকিং এর সাথে জড়িত নেই। চাকরি করেন একটি প্রতিষ্ঠানের তথ্য-প্রযুক্তিবিদ হিসেবে। তার কাজ হচ্ছে, সাইবার আক্রমণের হাত থেকে ওই প্রতিষ্ঠানটিকে রক্ষা করা।

তিনি বলেন, “আমি দেখলাম, সাইবার অ্যাটাক করে মনের যতোটা শান্তি হয় তারচেয়েও বেশি শান্তি পাই সাইবার আক্রমণ ঠেকাতে পারলে।”

Related posts